Home / জাতীয় / আওয়ামী লীগই দেশ ও জাতিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে- প্রধানমন্ত্রী

আওয়ামী লীগই দেশ ও জাতিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে- প্রধানমন্ত্রী

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাই হয়েছিল নিপীড়ন রোধ করতে, শোষণ-বঞ্চনা, ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত দেশ গড়তে। আওয়ামী লীগই দেশ ও জাতিকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

আওয়ামী লীগ দেশকে ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত করবে।রবিবার (২৩ জুন) আওয়ামী লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর এসব কথা বলেন তিনি।

প্রথমে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন শেখ হাসিনা। পরে আওয়ামী লীগ সভাপতি হিসেবে দলের শীর্ষ নেতাদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে আরেক দফা শ্রদ্ধা জানান তিনি।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে জাতীয় সংগীতের সঙ্গে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।দেশের সুপ্রাচীন রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি উদ্বোধনের সময় পায়রা অবমুক্ত করার পাশাপাশি বেলুনও ওড়ানো হয়।

এসময় তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই দেশ স্বাধীন হয়েছে। আওয়ামী লীগই দেশকে আর্থ-সামাজিকভাবে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। ক্ষুধা দারিদ্র্যমুক্ত, উন্নত ও সমৃদ্ধ সোনার বাংলাও আওয়ামী লীগই প্রতিষ্ঠা করবে।’আওয়ামী লীগের পাশাপাশি সহযোগী সংগঠনগুলোর শীর্ষ নেতারাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

পরে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরের ভেতরে যান এবং সেখানে বেশ কিছু সময় অবস্থান করেন।শেখ হাসিনা ৩২ নম্বর থেকে চলে যাওয়ার পর যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ, শ্রমিক লীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা লীগ, যুব মহিলা লীগসহ আওয়ামী লীগের সহযোগী-ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

এ সময় বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দেয়।১৯৪৭ সালে সম্পূর্ণ পৃথক দুটি ভূখণ্ড, স্বতন্ত্র ভাষা ও সংস্কৃতির অঞ্চল নিয়ে পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার মাত্র ৪ মাস ২০ দিনের মধ্যে তখনকার তরুণ যুবনেতা শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি গঠন করেন সরকারবিরোধী ছাত্র সংগঠন পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ।

এরই ধারাবাহিকতায় পরের বছর ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার স্বামীবাগে কেএম দাস লেনের রোজ গার্ডেনে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর উদ্যোগে আয়োজিত কর্মী সম্মেলনে গঠন করা হয় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ।মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী সভাপতি, টাঙ্গাইলের শামসুল হক সাধারণ সম্পাদক, শেখ মুজিবুর রহমানকে (কারাবন্দি ছিলেন) যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত হয় আওয়ামী (মুসলিম) লীগের প্রথম কমিটি।

১৯৫৫ সালে এই দল ধর্মনিরপেক্ষতাকে আদর্শ হিসেবে গ্রহণ করে। দলের নামকরণ হয় ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ।’মুক্তিযুদ্ধের পরে পাকিস্তান শব্দটি বাদ গিয়ে দলটি ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ’ নামে কার্যক্রম শুরু করে।

About Desk

Check Also

সারা দেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ১৬৪৯ জন

সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ১৬৪৯ জন। এর মধ্যে রাজধানীর …

Leave a Reply